শীতকালীন ক্যাম্পিংয়ের টুকিটাকি

আমাদের দেশে সবচেয়ে বেশি মানুষ তাঁবুবাসে যায় শীতকালে। কারণটাও খুব স্বাভাবিক, অন্য সময় আমাদের আবহাওয়ায় ক্যম্পিং করা বেশ কঠিন। গরমে ও বৃষ্টিতে অনেকেই ক্যাম্পিংকে ঝামেলা মনে করেন। শীতের সময় দেশের অনেক পর্যটনের জায়গাগুলোতে মারাত্মক ভিড় থাকে। তাই তাঁবু সঙ্গে থাকলে নিজেদের মতো করে মোটামুটি কম মানুষ যায় এরকম জায়গায় যেয়ে ক্যাম্পিং করা যায়।তবে শীতকালে ক্যাম্পিং করতে গেলে কিছু জিনিসপত্র অতিরিক্ত লাগে যেটা বছরের অন্য সময় লাগেনা। আবার সবধরনের ক্যাম্পিংয়ে কিছু জিনিসপত্র লাগবেই। এ আর্টিকেলে আসি শুধু শীতকালের ক্যাম্পিং যে গিয়াগুলো থাকা লাগবে সেগুলো নিয়েই আলোচনা করবো। ১. ভালো মানের তাঁবু: ক্যাম্পিংয়ের সবচেয়ে জরুরি জিনিস হচ্ছে ভালো মানের তাঁবু। সাধারণ মানের তাঁবু পানি নিরোধক ক্ষমতা থাকেনা, ফলে শিশিরেই তাঁবু ভেজা শুরু করে যেটা আপনাকে খুব বিপদে ফেলতে পারে। এছাড়া তাঁবু কয়জনের সেটাও দেখে নিবেন। গাদাগাদি করে বেশি লোক থাকলে ঘুমের সমস্যা হবে।

বাংলাদেশের আবহাওয়ার জন্য ভালো মানের তাঁবু পাওয়া যায় www.peak69.com এ।

লম্বা পথ যদি আপনাকে তাঁবু বহন করে ট্রেকিং করে ক্যাম্পিংয়ে যেতে হয় সেক্ষেত্রে আল্ট্রালাইট তাঁবু জরুরি। অন্যান্য ক্ষেত্রে তাঁবু ভারী হলেও তেমন সমস্যা নেই। যেমন গাড়ি বা লঞ্চে গেলে সারাক্ষণতো তাঁবু বহন করা লাগেনা, সেক্ষেত্রে তাঁবু একটু বড়/ভারী হলে তেমন কোন সমস্যা নেই। আপনি যদি তাঁবু না কিনে ভাড়া নিতে চান তবে যোগাযোগ করতে পারেন আমাদের পেইজে

২. ইনস্যুলেটেড ম্যাট্রেস: অনেকে ধারণাই করতে পারেনা রাতের বেলা তাঁবুর নিচের দিক থেকে কি ধরণের ভয়াবহ ঠাণ্ডা উঠতে পারে। এ থেকে বাঁচতে হলে অবশ্যই আপনার সাথে একটি ইনস্যুলেটেড ম্যাট্রেস থাকতে হবে। তাঁবু ফেলার পর এই ম্যাট্রেস তাঁবুতে বিছিয়ে তার উপর থাকতে হবে।ভালোমানের ভাজ করা যায় এরকম ম্যাট্রেস পাওয়া যায় অ্যাডভেঞ্চার শপগুলোতে। সেটা ব্যবহার করতে না চাইলে বা একবার ব্যবহারের জন্য হার্ডওয়ারের দোকান থেকে নিজের শরীরের মাপে একটা ইনস্যুলেটেড ম্যাট্রেস কিনে সেটা সঙ্গে নিয়ে যেতে পারেন।

৩. স্লিপিং ব্যাগ ও পিলো: এই আবহাওয়ায় ক্যাম্পিংয়ের জন্য স্লিপিং ব্যাগ অত্যন্ত জরুরি। কম্বল বা এধরণের কিছু বহন করা কঠিন এবং ক্যাম্পসাইটে প্রয়োজন ঠিকমতো মেটাতে পারেনা। তাই শীতের ক্যাম্পিংয়ে স্লিপিং ব্যাগ থাকতেই হবে। এছাড়া ক্যাম্পিয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ইনফ্লেটেবল পিলোও নিতে পারেন।

স্লিপিং ব্যাগ ছাড়া শীতে ক্যাম্পিং অনেক কষ্টকর হবে। ছবি পিক ৬৯ অ্যাডভেঞ্চার শপ

৪. টেন্ট লাইট: যে কোন সময় ক্যাম্পিং করতে হলেই টেন্ট লাইট জরুরি। সাধারণত আমরা এমন জায়গায় ক্যাম্পিং করি যেখানে বিদ্যুতের সংযোগ থাকেনা। অন্তত পক্ষে একটি হেডল্যাম্প বা টর্চ লাইট হলেও কাজ চলে যাবে। যেখানে শেয়ালের উৎপাত বেশি সেখানে টেন্ট লাইট সারা রাত জ্বালিয়ে রাখতে পারেন।

৫. পাওয়ার ব্যাংক: ভ্রমণে এখন পাওয়ার ব্যাংক অপরিহার্য একটা জিনিস হয়ে দাঁড়িয়েছে। রাতে মোবাইল চার্জ দেয়া, ইউএসবি লাইট ব্যবহার করা, ক্যামের ব্যাটারি চার্জ করাসহ সব কাজেই পাওয়ার ব্যাংক লাগবে।

৬. পানি ও শুকনো খাবার: সাধারণত ক্যাম্পিংয়ের জায়গায় খাবারের কিছুই পাওয়া যায়না। তাই সঙ্গে পানির বোতলে বিশুদ্ধ পানি ও কিছু শুকনো খাবার যেমন বিস্কিট, চকলেট, মুড়ি এসব রাখতে পারেন।

৭. হ্যামক: ক্যাম্পিংয়ে গেলে সঙে একটা হ্যামক রাখতে পারেন। ক্যাম্পসাইটে গাছে হ্যামক ঝুলিয়ে চমৎকার সময় পার করা যায়। অবশ্য যেখানে ক্যাম্পিং করবেন সেখানে হ্যামক ঝুলানোর মতো জায়গা থাকতে হবে।

ক্যাম্প সাইটে হ্যামকে বিশ্রাম নেয়াটা বেশ মজার

৮. ব্যাকপ্যাক: সবকিছু বহনের জন্য ভালো বড় ব্যাকপ্যাক নিতে হবে। ব্যাকপ্যাকে প্রয়োজনীয় জামা-কাপড়ও নিবেন। সাধারণত ব্যাকপ্যাকের বাইরের অংশে তাঁবু রাখার মতো বেল্ট থাকে, সেখানে তাঁবু ঝুলিয়ে নিতে পারবেন।

৯. স্যানিটেশন: প্রয়োজনীয় পরিমাণে হাইজিন ও স্যানিটেশনের জিনিসপত্র নিবেন। যেমন একটি ছোট সাবান, কিছু টয়লেট টিস্যু, টুথব্রাশ ও সাবান। মশা ও পোকামাকড় থেকে বাঁচতে ওডোমোস ব্যবহার করতে পারেন। সর্বোপরি একটি গামছাও দরকার যেটা বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করা যাবে।

কিছু পরামর্শ:

১. ক্যাম্পিংয়ের জন্য মোটামুটি সমতল জায়গা ব্যবহার করবেন। ঢালু জায়গা/উঁচু-নিচু জায়গায় তাঁবু ফেললে ঘুমাতে কষ্ট হবে।

২. চেষ্টা করবেন কোন গাছের নিচে ছায়াযুক্ত স্থানে ক্যাম্প স্থাপণ করতে। রাতের বেলা অনেক ঠাণ্ডা থাকলে দিনের বেলা রোদে কষ্ট হয়, তাই ছায়াযুক্ত স্থানেই ক্যাম্প করা ভালো।

৩. দিনের আলো থাকতে থাকতেই ক্যাম্প স্থাপনার কাজ শেষ করে ফেলতে পারেন।

৪. যেখানে তাঁবু পাতবেন সেখানে তাঁবু পাতার আগে একটি তেরপাল/প্লাস্টিক শিট বিছিয়ে নিতে পারেন, এতে তাঁবুর নিচের অংশে বালি-কাদা লাগবেনা।

৫. সঙ্গে একটি হ্যামকও রাখতে পারেন, যাতে অবসর সময়ে গাছে হ্যামক ঝুলিয়েও বিশ্রাম নিতে পারেন।

৬. তাঁবু পাতার আগে দেখে নিন নিচে ছোট গাছের গুড়ি বেরিয়ে আছে কিনা। তা না হলে তাঁবুর ক্ষতি হতে পারে।

পরিশেষে যেখানেই ক্যাম্পিং করতে যাবেন, সেখানকার পরিবেশের ক্ষতি হয় এমন কিছু করবেন না।

ফিচার ইমেজ: লেখক

About Muhammad Hossain Shobuj

Check Also

পায়ে হেঁটে রংপুর বিভাগ ঘুরে দেখা – ৩য় দিন

কাউনিয়া – সাতমাথা – রংপুর – টার্মিনাল – রাজারামপুর বোর্ডঘর বাজার (বদরগঞ্জ) ৪৮.৪৩ কিলোমিটার গত …